নাটোর জেলায় যে কোন সময় কঠোর লকডাউনের ঘোষনা আসতে পারে

200

এস ইসলাম, নাটোর জেলা প্রতিনিধিঃ
যে কোন সময় নাটোরকে কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হতে পারে বলে একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে।
সরকার সারা দেশে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) বিস্তার ঠেকাতে এলাকাভিত্তিক লকডাউনের উদ্যোগ নিয়েছে। আক্রান্তের আধিক্য বিবেচনায় রেড জোন, ইয়েলো জোন ও গ্রিন জোনে চিহ্নিত করে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বাস্তবায়ন হবে স্বাস্থ্যবিধি ও আইনি পদক্ষেপ। সরকারের শীর্ষ পর্যায় থেকে এ কথা জানানো হয়েছে। এরমধ্যে নাটোর রয়েছে রেড জোনে, ফলে নাটোরকে যেকোনো সময় কঠোর লকডাউন ঘোষণা করা হতে পারে।
স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে দেশের তিনটি বিভাগ, ৫০টি জেলা ও ৪০০টি উপজেলাকে পুরোপুরি লকডাউন (রেড জোন বিবেচিত) দেখানো হচ্ছে। আংশিক লকডাউন (ইয়েলো জোন বিবেচিত) দেখানো হচ্ছে পাঁচটি বিভাগ, ১৩টি জেলা ও ১৯টি উপজেলাকে। আর লকডাউন নয় (গ্রিন জোন বিবেচিত) এমন জেলা দেখানো হচ্ছে একটি এবং উপজেলা দেখানো হচ্ছে ৭৫টি। মন্ত্রণালয়ের ওয়েবসাইটে শনিবার (৬ জুন) সর্বশেষ আপডেট করা তালিকায় উঠে এসেছে এসংক্রান্ত বিভিন্ন পরিসংখ্যান।
পরিসংখ্যানে রাজশাহী বিভাগের মধ্যে পুরোপুরি লকডাউন বলা হচ্ছে বগুড়া, জয়পুরহাট, নওগাঁ, নাটোর ও রাজশাহীকে। এই বিভাগে আংশিক লকডাউন চাঁপাইনবাবগঞ্জ, পাবনা ও সিরাজগঞ্জ। ফলে দ্রুত নাটোর লকডাউন ঘোষণা হতে পারে। যে কোন সময় আসতে পারে এ ঘোষণা।
স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয় থেকে জানা যায়, আজ রোববার (৭ জুন) থেকেই কিছু জায়গায় জোনিং ব্যবস্থার মাধ্যমে লকডাউন শুরু হচ্ছে। বেশি আক্রান্ত এলাকাকে রেড, অপেক্ষাকৃত কম আক্রান্ত এলাকাকে ইয়োলো ও একেবারে কম আক্রান্ত বা সংক্রমণমুক্ত এলাকাকে গ্রিন জোন হিসেবে চিহ্নিত করে স্বাস্থ্যবিধি বাস্তবায়ন করা হবে। গ্রিন জোনে সতর্কতা এবং ইয়েলো জোনে সংক্রমণ যেন আর না বাড়ে সেজন্য পদক্ষেপ থাকলেও রেড জোনে করোনার বিশেষ গাইডলাইন অনুযায়ী কঠোর হবে পুলিশ। সে অনুযায়ী নাটোরেও কঠোর পুলিশি ব্যবস্থা আসছে।
স্বাস্থ্য অধিদফতরের সর্বশেষ বুলেটিন অনুসারে, দেশে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন ৬৩ হাজার ২৬ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায়ই আক্রান্ত হয়েছেন দুই হাজার ৬৩৫ জন। আক্রান্তদের মধ্যে মারা গেছেন ৮৪৬ জন। এর মধ্যে গত ২৪ ঘণ্টায়ই মারা গেছেন ৩৫ জন।
তবে এ বিষয়ে নাটোরের জেলা প্রশাসক মোঃ শাহরয়াজ এর সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, আমাদের কাছে এখনো পর্যন্ত এরকম কোন তথ্য আসেনি। আমাদের কাছে তথ্য আসলে এবং সরকারি নির্দেশ আসলে আমরা সেই নির্দেশনা মত কাজ করব।